ADS বিজ্ঞাপনের জন্য যোগাযোগ করুন: [email protected]

আম্পায়ারের ‘পক্ষপাতিত্বে’ সোনা হাতছাড়া ভারতীয় মহিলাদের, সোশ্যাল মিডিয়ায় ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন ক্রিকেটার বীরেন্দ্র শেহওয়াগ

আম্পায়ারের ‘পক্ষপাতিত্বে’ সোনা হাতছাড়া ভারতীয় মহিলাদের, সোশ্যাল মিডিয়ায় ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন ক্রিকেটার বীরেন্দ্র শেহওয়াগ

[ad_1]

ম্যাচের ফল অন্যরকম হতেই পারত। অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে সোনার দৌড়ে আরও একধাপ এগিয়ে যেতে পারত ভারতীয় মহিলা হকি দল। কিন্তু ভারতীয় মহিলাদের ‘পথের কাঁটা’ হয়ে দাঁড়ালেন খোদ আম্পায়ার! এমন অভিযোগেই তোলপাড় নেটদুনিয়া। তাঁর পক্ষপাতদুষ্ট সিদ্ধান্তের জেরেই সেমিফাইনালে অজিবাহিনীর কাছে হার স্বীকার করতে হল ভারতকে।

শুক্রবার নির্ধারিত সময়ে ভারত-অস্ট্রেলিয়ার খেলার ফল হয় ১-১। হাড্ডাহাড্ডি লড়াই এরপর গড়ায় পেনাল্টি শুটআউটে। সেখানেই ঘটে যাবতীয় বিতর্কিত কাণ্ড। ভারতীয়দের তিনজনই পেনাল্টি শট মিস করেন। এদিকে অজি তারকা ম্যালন প্রথমে শট থেকে গোল করতে ব্যর্থ হন।

কিন্তু অদ্ভুতভাবে আম্পায়ার জানান, কখনও ঘড়িতে পেনাল্টির সময় শুরু হয়নি। তাই আরও একবার চেষ্টা করার সুযোগ দেওয়া হয় ম্যালনকে। দ্বিতীয়বারের সুযোগকে পুরোদমে কাজে লাগান অজি খেলোয়াড়। তাঁর স্টিক থেকে আসে কাঙ্খিত গোল। পরের দুই শুটারও গোল করেন। আর তাতেই ভারতের বিরুদ্ধে ৩-০ গোলে জেতে অজিবাহিনী।

আম্পায়ারের এহেন পক্ষপাতদুষ্ট আচরণ কিছুতেই মেনে নিতে পারছেন না ভারতীয় তারকারা। ম্যাচ শেষে এই ‘নাটকে’র সমালোচনা করেন ভারতীয় দলের কোচ জে স্কপম্যান। বলেন, “বুঝতেই পারলাম না কী হল। অস্ট্রেলিয়া বিষয়টা নিয়ে অভিযোগও করেনি। অফিসিয়ালরাও এই নাটকটা বুঝলেন কি না, জানি না। আমি কোনও অজুহাত দিচ্ছি না। এতে আমরা কোনও সুবিধা পেতাম না।” কিন্তু খেলার মাঠে এধরনের আচরণ যে মেনে নেওয়া যায় না, সে কথাই বুঝিয়ে দেন তিনি।

এভাবে ভারতীয় দলের হার মেনে নিতে পারছেন না সমর্থকরাও। সোশ্যাল মিডিয়ায় ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন তাঁরা। নেটিজেনদের দাবি, আম্পায়ার পক্ষপাতিত্ব না করলে ম্যাচের ফল অন্যরকম হতেও পারত। হয়তো সোনা জয়ের স্বপ্নভঙ্গ হত না। আন্তর্জাতিক হকি ফেডারেশনকেও একহাত নিয়ে ছাড়েননি তাঁরা। একই সুর শোনা গেল প্রাক্তন ক্রিকেটার বীরেন্দ্র শেহওয়াগের গলায়। ঘটনার তীব্র নিন্দা করে টুইট করেন, “অস্ট্রেলিয়া পেনাল্টি মিস করল আর আম্পায়ার বললেন ঘড়ি চালু হয়নি। ক্রিকেটেও আগে এমনটা হত যতক্ষণ না আমরা শক্তিশালী দলে পরিণত হয়েছি। হকিতেও খুব তাড়াতাড়ি হব। তখন সব ঘড়ি আমাদের হিসাব মতো চলবে।”

তবে সোনা হাতছাড়া হলেও পদক জয়ের আশা এখনও রয়েছে। কমনওয়েলথ গেমস থেকে ব্রোঞ্জ ঘরে তুলতে হলে নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে জিততে হবে ভারতকে।



[ad_2]

Leave a Reply