ADS বিজ্ঞাপনের জন্য যোগাযোগ করুন: [email protected]

পাকিস্তানি খেলোয়াড় প্রকাশ্যে দুর্ব্যবহার, আফগান বোলারের উপর ব্যাট হাতে ‘তেড়ে গেলেন’ আসিফ আলি,লজ্জার নজির পাকিস্তানের

পাকিস্তানি খেলোয়াড় প্রকাশ্যে দুর্ব্যবহার, আফগান বোলারের উপর ব্যাট হাতে ‘তেড়ে গেলেন’ আসিফ আলি,লজ্জার নজির পাকিস্তানের

[ad_1]

হাড্ডাহাড্ডি ম্যাচে জয়ের দিন লজ্জার নজির তৈরি করল পাকিস্তান। বিপক্ষের প্লেয়ারকে মারতে গেলেন আসিফ আলি। এই ঘটনার পর বিভিন্ন মহল থেকে ভেসে এসেছে নিন্দা। ফাইনালে প্রবেশের দিনে কাঁটার মত পাকিস্তানের গলায় বিঁধে রইল এই ঘটনা। কড়া শাস্তির দাবি করছেন নেটিজেনরা। যদিও কোনও পক্ষই এখনও এই ব্য়াপারে মুখ খোলেনি।

এশিয়া কাপে সুপার ফোরের ম্যাচ আফগানিস্তানকে পরাস্ত করে ফাইনালে নিজেদের জায়গা নিশ্চিত করেছে পাকিস্তান। হাড্ডাহাড্ডি ম্যাচে এই জয়ের দিন বিতর্ক সাক্ষী থাকল। মারামারির পরিস্থিতি তৈরি হল আফগানিস্তান ও পাকিস্তান প্লেয়ারদের মধ্যে। ক্রিকেটকে যেখানে ভদ্রলোকদের খেলা বলা হয়, সেখানে এই ধরনের ব্যবহার ক্রিকেটের গায়ে যে কালি লাগাল তা বলাই যায়।

পরিস্থিতি এমন হয়েছে যে ব্যাট দিয়ে মারতে উদ্যত হয় পাকিস্তানি প্লেয়ার। এই ঘটনার পর প্লেয়ারদের ভদ্রতা নিয়ে নিন্দার মুখে দুই দল। পাশাপাশি এই ঘটনায় এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিল কী পদক্ষেপ নেয় সেই দিকেও তাকিয়ে সমর্থকরা। ফাইনালে যাওয়ার আনন্দ কখনই ক্রিকেটকে কালিমালিপ্ত করতে পারে না বলে মনে করেন সমর্থকরা।

সুপার ফোরের ম্যাচে আফগানিস্তানকে এক উইকেটে পরাস্ত করে পাকিস্তান। ফলে ফাইনালে শ্রীলঙ্কার সঙ্গে প্রবেশ করল তারা। অন্যদিকে ভারত ছিটকে গেল এশিয়া কাপের লড়াই থেকে। কারণ ভারতকে ফাইনালে যেতে গেলে পাকিস্তানকে হারতে হত। ম্যাচে সেই পরিস্থিতিও হয়ে গিয়েছিল। কিন্তু শেষে সেটা হল না। ১ উইকেট বাকি থাকতেই জয়ের জন্য প্রয়োজনীয় রান তুলে নেয় বাবর আজমরা। যারমধ্যে এই বিতর্কিত ঘটনা।

ঘটনাটি ঘটে পাকিস্তানের ইনিংসের সময়। ১৯ তম ওভারের পঞ্চম বলের সময় ব্যাট করছিলেন আসিফ আলি। বলে ছিলেন ফারহিদ আহমেদ। আসিফ আলি ৭ বলে ১৬ রান নিয়ে ব্যাটিং করছিলেন। সেই সময় ওভারের পঞ্চম বলে তিনি একটি মিস হিট করেন ও আউট হন। স্বাভাবিকভাবেই এই গুরুত্বপূর্ণ উইকেট পেয়ে আনন্দ করছিলেন ফারিদ আহমেদ।

যখন আসিফ আলি ক্রিজ ছেড়ে যাচ্ছিলেন সেই সময় তিনি বোলার ফারিদ আহমেদের দিকে যান ও কিছু বলেন। এরপর আসিফ আলি ব্যাট দিয়ে ফারিদকে মারতে উদ্যত হয় ও কনুই দিয়ে ধাক্কা দেয়। সেই সময় আফগানিস্তানের প্লেয়াররা দুজনকে সরিয়ে দেন। দেরি হয়ত মারপিট হয়ে যেত। মনে করা হচ্ছে, আসিফ আলির উইকেট নেওয়ার পর ফারিদ যেভাবে আনন্দ করছিলেন সেটা আসিফের পছন্দ হয়নি। তাই তিনি রাগের বশে এটা করতে গিয়েছিলেন। যদিও এই ঘটনা মোটেই কাম্য নয়।

আসিফ আলি আউট হওয়ার পর পাকিস্তানের ম্যাচ জয় প্রশ্নের মুখে পড়েছিল। সেই সময় তাদের হাতে ছিলেন নাসিম শাহ। তরুণ এই নাসিম কতটা করতে পারবেন তা নিয়ে সন্দেহ ছিল। কিন্তু ফাইনাল ওভারে তিনি ফজলহক ফারুকিকে দুটো বড় ছয় মেরে ম্যাচ জিতিয়ে দেন।



[ad_2]

Leave a Reply