ADS বিজ্ঞাপনের জন্য যোগাযোগ করুন: [email protected]

শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচে ইংল্যান্ডে কাঁদিয়ে ঐতিহাসিক পদক জয় নিশ্চিত করল হরমনপ্রীতরা

শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচে ইংল্যান্ডে কাঁদিয়ে ঐতিহাসিক পদক জয় নিশ্চিত করল হরমনপ্রীতরা

[ad_1]

৩ ম্যাচের ২টিতে জয় তুলে নিয়ে এ-গ্রুপ থেকে দ্বিতীয় দল হিসেবে কমনওয়েলথ গেমস ক্রিকেটের সেমিফাইনালে উঠেছে ভারত। শেষ চারে হরমনপ্রীত কউরদের সামনে আয়োজক ইংল্যান্ডের চ্যালেঞ্জ।

সেমিফাইনালে জিতে ফাইনালে উঠলেই পদক (অন্ততপক্ষে রুপো) নিশ্চিত করবে ভারত। তবে হারলেও ব্রোঞ্জ মেডেল ম্যাচে লড়াই চালানোর সুযোগ পাবে ভারতীয় দল।শেষ ওভারের পঞ্চম বলে রান-আউট হন পূজা বস্ত্রকার।

ভারত ১৬০ রানে ৫ উইকেট হারায়। ব্যাট করতে নামেন স্নেহ রানা। শেষ বলে বাউন্ডারি মারেন জেমিমা। ভারত ২০ ওভারে ৫ উইকেটের বিনিময়ে ১৬৪ রান তোলে। সুতরাং, জয়ের জন্য ইংল্যান্ডের দরকার ১৬৫। জেমিমা ৭টি বাউন্ডারির সাহায্যে ৩১ বলে ৪৪ রান করে নট-আউট থাকেন।

ইংল্যান্ডের হয়ে ওপেন করতে নামেন ডাঙ্কলি ও ওয়াট। বোলিং শুরু করেন রেনুকা। শুরুতেই নো বলে চার মারেন ডাঙ্কলি। রেনুকা পুনরায় প্রথম বল করলে ফের চার মারেন ডাঙ্কলি। ওভারের পঞ্চম বলে চার মারেন ওয়াট। ইংল্যান্ড প্রথম ওভারে ১৫ রান তোলে।

২.৫ ওভারে সোফিয়া ডাঙ্কলিকে এলবিডব্লিউ-র ফাঁদে জড়ালেন দীপ্তি শর্মা। ৪টি বাউন্ডারির সাহায্যে ১০ বলে ১৯ রান করে মাঠ ছাড়েন ডাঙ্কলি। ইংল্যান্ড২৮ রানে ১ উইকেট হারায়। ব্যাট করতে নামেন অ্যালিস ক্যাপসি।

পাওয়ার প্লে-র ৬ ওভারে ইংল্যান্ডের স্কোর ১ উইকেটে ৫৮ রান। ২১ বলে ২৮ রান করেছেন ড্যানি ওয়াট। ৬ বলে ৮ রান করেছেন অ্যালিস ক্যাপসি।

৬.২ ওভারে রান-আউট হয়ে সাজঘরে ফেরেন ক্যাপসি। ২টি বাউন্ডারির সাহায্যে ৮ বলে ১৩ রান করেন তিনি। ইংল্যান্ড ৬২ রানে ২ উইকেট হারায়। ব্যাট করতে নামেন ন্যাট সিভার।

৮.৬ ওভারে স্নেহ রানার বলে বোল্ড হয়ে সাজঘরে ফেরেন ড্যানি ওয়াট। ৬টি বাউন্ডারির সাহায্যে ২৭ বলে ৩৫ রান করে মাঠ ছাড়েন ওয়াট। ইংল্যান্ড ৮১ রানে ৩ উইকেট হারায়। ব্যাট করতে নামেন অ্যামি জোনস।

১৩ ওভারে ইংল্যান্ডের স্কোর ৩ উইকেটে ১০৪ রান। ২৭ বলে ২৪ রান করেছেন ন্যাট সিভার। ৭ বলে ৭ রান করেছেন অ্যামি জোনস।

জয়ের জন্য শেষ ৫ ওভারে ইংল্যান্ডের দরকার ৪৮ রান। ১৫ ওভার শেষে ইংল্যান্ডের স্কোর ৩ উইকেটে ১১৭ রান। ৩২ বলে ২৯ রান করেছেন ন্যাট সিভার। ১৪ বলে ১৫ রান করেছেন অ্যামি জোনস।

১৬তম ওভারে শেফালি বর্মা ১৫ রান খরচ করেন। ২টি চার মারেন জোনস। ইংল্যন্ডের স্কোর ৩ উইকেটে ১৩২ রান।

১৭.২ ওভারে রান-আউট হয়ে মাঠ ছাড়েন অ্যামি জোনস। ৩টি বাউন্ডারির সাহায্যে ২৪ বলে ৩১ রান করেন অ্যামি। ইংল্যান্ড ১৩৫ রানে ৪ উইকেট হারায়। ব্যাট করতে নামেন মাইয়া বাউচার। ১৮ ওভারে ইংল্যান্ডের স্কোর ৪ উইকেটে ১৩৮।

১৮.৫ ওভারে রান-আউট হয়ে মাঠ ছাড়েন ন্যাট সিভার। ২টি চার ও ১টি ছক্কার সাহায্যে ৪৩ বলে ৪১ রান করেন তিনি। ইংল্যান্ড ১৫১ রানে ৫ উইকেট হারায়। শেষ ওভারে জয়ের জন্য ইংল্যান্ডের দরকার ১৪ রান।

শেষ ওভারে স্নেহ রানার প্রথম বলে কোনও রান সংগ্রহ করতে পারেননি বাউচার। দ্বিতীয় বলে ১ রান নেন তিনি। তৃতীয় বলে হরমনপ্রীতের হাতে ধরা পড়েন ব্রান্ট। তিনি ২ বল খেলে খাতা খুলতে পারেননি। ব্যাট করতে নামেন একলেস্টোন।

চতুর্থ বলে তাঁর ক্যাচ ছাড়েন হার্লিন দেওয়ল। সেই বলে ১ রান ওঠে। পঞ্চম বলে ১ রান নেন বাউচার। শেষ বলে ছক্কা মারেন একলেস্টোন। ওভারে ৯ রান ওঠে। ৫ রানে ম্যাচ জিতে ফাইনালে ওঠে ভারত।

[ad_2]

Leave a Reply