ADS বিজ্ঞাপনের জন্য যোগাযোগ করুন: [email protected]

শেষ ৩৪ দিনে পেট্রলের দাম বৃদ্ধি ৯.৬১ টাকা রাজ্যের বিভিন্ন জেলায় সেঞ্চুরি করল পেট্রলের দাম

শেষ ৩৪ দিনে পেট্রলের দাম বৃদ্ধি ৯.৬১ টাকা রাজ্যের বিভিন্ন জেলায় সেঞ্চুরি করল পেট্রলের দাম
শেষ ৩৪ দিনে পেট্রলের দাম বৃদ্ধি ৯.৬১ টাকা রাজ্যের বিভিন্ন জেলায় সেঞ্চুরি করল পেট্রলের দাম

Bengaliportal: গত কয়েক দিন যাবৎ যে আশঙ্কার প্রহর গুনছিল কলকাতা, তা সত্যি হল আজ। পেট্রলের দাম ‘সেঞ্চুরি’ করল এই শহরেও, যে নজিরবিহীন দৌড় গত শুক্রবার থেকেই দেখতে শুরু করেছে রাজ্যের বিভিন্ন জেলা।

আজ কলকাতায় ইন্ডিয়ান অয়েলের পাম্পে (আইওসি) পেট্রল লিটার পিছু ৩৯ পয়সা বেড়ে ছুঁয়ে ফেলল ১০০.২৩ টাকা। ২৩ পয়সা বাড়ল ডিজেলের দরও। এক লিটারের দাম হল ৯২.৫০ টাকা। করোনা সঙ্কটের মধ্যে আর্থিক দশা এমনিতেই বেহাল আমজনতার। এমন অবস্থায় তেলের ‘শতদামের’ এই রেকর্ডে ক্ষুব্ধ সাধারণ মানুষ। সকলেরই প্রশ্ন, করোনাকালে যেখানে হাত বাড়িয়ে দেওয়ার কথা, সেখানে সরকারের এমন বিবেকহীন আচরণ কেন?

প্রতিদিনের তাজা খবর পেতে ফেসবুক পেজ ও টেলিগ্রামে যুক্ত হন:


পশ্চিমবঙ্গ-সহ পাঁচ রাজ্যে ভোট মেটার পর থেকে লাগাতার দামি হচ্ছে তেল। ৪ মে থেকে বুধবার পর্যন্ত পেট্রল বেড়েছে মোট ৩৬ দিন। আর ডিজেল ৩৪ দিন। সে দিন থেকে কলকাতায় পেট্রল লিটারপিছু দামি হয়েছে মোট ৯.৬১ টাকা। আর গত এক বছরে ১৮.১৩ টাকা। ৩৪ দিনে ডিজেলের দামে বৃদ্ধি ৮.৮৯ টাকা, এক বছরে ১৭.৮৬ টাকা।

একে তো পরিবহণ জ্বালানির দাম বাড়ায় বাজারে জিনিসের দরে আগুন। তার উপরে ৯০০ টাকার কাছাকাছি পৌঁছে গিয়েছে রান্নার গ্যাসের দাম। তেলের চড়া দরের জন্য সাত বছরে উৎপাদন শুল্ক বিপুল হারে বাড়ার পরিসংখ্যান দেখিয়ে বিরোধীরা বিঁধছেন মোদী সরকারকে।

সংশ্লিষ্ট মহল এই প্রশ্নও তুলছে, যে নেপাল, ভুটানের মতো পড়শি রাষ্ট্র ভারত থেকে তেল আমদানি করে, তারা তা হলে ক্রেতাদের এ দেশের তুলনায় কম দামে জ্বালানি কেনার সুবিধা দেয় কী করে? মোদী সরকারের নেতা-মন্ত্রীরা অবশ্য বার বারই বিশ্ব বাজারে অশোধিত তেলের চড়া দামকে কাঠগড়ায় তোলার পাশাপাশি যুক্তমূল্য কর বা ভ্যাট কমানোর কথা বলে পেট্রল-ডিজেলের দামে সাধারণ মানুষকে সুরাহা দেওয়ার বল ঠেলছেন রাজ্যের কোর্টে।

ইন্ডিয়ান অয়েল ডিলার্স ফোরামের প্রেসিডেন্ট জন মুখোপাধ্যায় বলেন, ‘‘অতিমারিতে এমনিতেই বিক্রি কম। উপরন্তু এত চড়া হারে দাম বৃদ্ধির জন্য আমাদের তেল কিনতেও অনেক বেশি খরচ হচ্ছে। কিন্তু কমিশন বাবদ আয় এক। সব মিলিয়ে ব্যবসা চালানোই দায় হয়ে পড়েছে।’’ ওয়েস্ট বেঙ্গল পেট্রোলিয়াম ডিলার্স অ্যাসোসিয়েশনের অন্যতম কর্তা প্রসেনজিৎ সেন জানিয়েছেন, পেট্রলের দরের এই সেঞ্চুরির প্রতিবাদে আজ পাম্পে কালো ব্যাজ পরে কাজ করবেন তাঁরা। পাশাপাশি জেলার মতো সেখানেও সন্ধ্যা ৭টা থেকে সাড়ে ৭টা পর্যন্ত আলো নেভানো থাকবে। পাম্প মালিকরা বলছেন, তেলের দাম বাড়লে ভ্যাটের হার একই থাকলেও, রাজ্যের কর বাবদ আয়ও বাড়ে অনেকটা। তাই কেন্দ্র ও রাজ্য, উভয়ের কাছেই কর ছাঁটার আর্জি জানিয়েছেন তাঁরা। গত ফেব্রুয়ারিতে অবশ্য এ রাজ্যে পেট্রল-ডিজেলের ১ টাকা করছাড় কার্যকর হয়েছিল। কিন্তু পাশাপাশি তেল সংস্থাও দাম বাড়ানোয় সেই সুফল তেমন ভাবে পাননি রাজ্যবাসী।

Leave a Reply